জীবনী

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জীবনী | Sarat Chandra Chattopadhyay Biography in Bengali

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জীবনী (Sarat Chandra Chattopadhyay Jiboni Bangla) : শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় ছিলেন একজন অমর গল্পকার এবং বাংলা থেকে সুপরিচিত উপন্যাসিক। তার বেশিরভাগ কাজই গ্রামের মানুষের জীবনধারা, তাদের সংগ্রাম এবং তারা যে সংকটের মুখোমুখি হয়েছিল তা বর্ণনা করে।

Sarat Chandra Chattopadhyay Biography in Bengali

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় হুগলি জেলার দেবানন্দপুর গ্রামে ১৮৭৬ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। শরৎচন্দ্র ছিলেন তার পিতামাতার নয় সন্তানের মধ্যে একজন।

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শিক্ষা

শরৎচন্দ্র আঠারো বছর বয়সে দ্বাদশ শ্রেণী পাস করেছিলেন। শরৎচন্দ্র এই দিনগুলিতে ‘বাসা’ (বাড়ি) নামে একটি উপন্যাস লিখেছিলেন, কিন্তু এই লেখাটি প্রকাশিত হয়নি। কলেজের পড়াশোনা মাঝপথে ছেড়ে দিয়ে তিনি বার্মায় (বর্তমান মায়ানমার) মাসে ত্রিশ টাকায় একজন কেরানি হিসেবে কাজ করতে গেলেন। ।

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের গল্প-সাহিত্য যে রূপে উপস্থাপন করা হয়েছিল, জনপ্রিয়তার উপাদানটি কেবল তার পাঠকের রুচি বাড়িয়ে দিয়েছে। শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ও একমাত্র ভারতীয় গল্প লেখক, যাঁর বেশিরভাগ ক্লাসিক রচনার ওপর চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছিল এবং অনেক সিরিয়ালও তৈরি হয়েছিল। দেবদাস, চরিত্রহীন এবং শ্রীকান্তের রচনা ।

আরো পড়ুন : রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জীবনী

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের সাহিত্যিক ভূমিকা

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সাহিত্য ক্ষেত্রে প্রবেশ করেন বাস্তবতা নিয়ে। বাংলা সাহিত্যে এটি ছিল প্রায় নতুন বিষয়। শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় তাঁর জনপ্রিয় উপন্যাস এবং গল্পে সামাজিক রীতি -নীতি নিয়ে অনেক কথা বলেছিলেন।।

প্রতিভা

শরৎচন্দ্রের প্রতিভা উপন্যাসের পাশাপাশি তার গল্পেও দেখা যায়। তাঁর গল্পে উপন্যাসের মতো মধ্যবিত্ত সমাজের বাস্তব চিত্র অঙ্কিত। শরৎচন্দ্র ছিলেন প্রেম কুশালের পাখি। শরৎচন্দ্রের গল্পে প্রেম এবং নারী-পুরুষ সম্পর্কের চিত্রায়ন আছে। শিল্পের দৃষ্টিকোণ থেকে তার কিছু গল্প খুবই স্পর্শকাতর।

 এই গল্পগুলি শরতের হৃদয়ের সম্পূর্ণ অনুভূতির প্রতিনিধিত্ব করে। তিনি তার শৈশবের স্মৃতি থেকে এবং বন্ধুদের এবং তার সংস্পর্শে আসা অন্যান্য ব্যক্তিদের জীবন থেকে গল্প সংগ্রহ করেছেন। এই গল্পগুলো মনে হয় এগুলো আমাদের জীবনের একটি অংশ।

সমগ্র সাহিত্য

শরৎচন্দ্রের সমগ্র সাহিত্য নারীর উত্থান পতন ও পতনের উত্থানের সমবেদনাপূর্ণ কাহিনীতে পরিপূর্ণ। তাঁর গল্পে শরৎচন্দ্র কেবল ভুক্তভোগী-নিপীড়িত নারীর গল্পই গাইতেন না, কেবল তাঁর অপবিত্রতা ও মোহভঙ্গের গল্পই বলতেন না, তিনি তাঁর স্নেহ, ত্যাগ, ত্যাগ, ভালোবাসা ও স্নেহের পবিত্র কাহিনীও বর্ণনা করতেন।

শরৎচন্দ্রের গল্পে, মহিলাদের সর্বনিম্ন এবং সর্বশ্রেষ্ঠ উভয় রূপই একই সাথে দেখা যায়। শরৎচন্দ্র যখন একজন নারীর কাহিনী বর্ণনা করতে গিয়ে একই মহিলার উজ্জ্বল চরিত্র প্রকাশ করেন, তখন পাঠক স্তব্ধ হয়ে যায়।

এই প্রশ্নটি তার মনের গভীরে যায় যে একই মহিলার দুটি রূপ কিভাবে হতে পারে এবং তিনি বুঝতে পারছেন না যে নারীর কোন রূপটি তাকে গ্রহণ করা উচিত। শরৎচন্দ্র যে দক্ষতায় তার গল্পে নারী হৃদয়ের গিঁট উন্মোচন করেন, তার রচনায় নারীর যে অনেক রূপ সামনে আসে, তা বিশ্বসাহিত্যে কোথাও খুঁজে পাওয়া যায় না।

আরো পড়ুন : নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর জীবনী

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের উপন্যাস ও গল্প

শরৎচন্দ্র পণ্ডিত মোশাই, বৈকুন্ঠের বিল, মেজ দিদি, দর্পচর্ণা, অভাগিনীর স্বর্গ, শ্রীকান্ত, আরক্ষনীয়া, নিষ্কৃতি, মামলার ফল, অনুপমার প্রেম, গৃহদাহ, শেষ প্রশ্ন, দত্ত, দেবদাস, ব্রাহ্মণের মেয়ে, সতী, বিপ্রদাস ও দেনা পাওনা সহ অনেক উপন্যাস লিখেছেন।

তিনি বাংলার বিপ্লবী আন্দোলন নিয়ে ‘পথের দাবী’ উপন্যাস রচনা করেন। শরতের উপন্যাস অনেক ভারতীয় ভাষায় অনূদিত হয়েছে। শরৎচন্দ্রের কিছু উপন্যাসের উপর ভিত্তি করে হিন্দি ছবিও তৈরি হয়েছে বেশ কয়েকবার।

১৯৭৪ সালে, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের উপন্যাস ‘চরিত্রহীন’ অবলম্বনে একটি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছিল। এরপর দেবদাসকে কেন্দ্র করে দেবদাস চলচ্চিত্রটি তিনবার নির্মিত হয়েছে। কুন্দন লাল সেহগাল অভিনীত প্রথম দেবদাস (১৯৩৬), দ্বিতীয় দেবদাস (১৯৯৫ ) দিলীপ কুমার, বৈজয়ন্তীমালা এবং তৃতীয় দেবদাস (২০০২ ) শাহরুখ খান, মাধুরী দীক্ষিত, ঐশ্বর্য রাই অভিনীত। এ ছাড়া ১৯৭৪ সালে, পরিনিতা ১৯৫৩ এবং ২০০৫  সালে, বড় দিদি (১৯৬৯ ) এবং মিডল সিস্টার ইত্যাদি চলচ্চিত্রও তৈরি হয়েছে।

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় ১৯৩৮  সালের ১৬ জানুয়ারি মারা যান।

FAQ

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ছদ্মনাম কি ?

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ছদ্মনাম হল অনিলা দেবী।

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় রাজনৈতিক উপন্যাস কোনটি ?

পথের দাবী হলো শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় রাজনৈতিক উপন্যাস।

আরো পড়ুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!